প্রথম আলোর লতিফুর রহমানের নাতি ফারাজ হিরো ন​য় , সন্দেহভাজন জঙ্গি !!

victims

আমরা এখন আপনাদের যে তথ্য দিতে যাচ্ছি সেটি শুনলে আপনারা হয়ত চমকে উঠবেন কিংবা আপনাদের ভেতরে জেগে উঠবে সন্দেহ। এমনও হতে পারে যে আপনি আমাদের প্রতি ঘৃণায় মুখ কুঁচকাবেন আমাদের মিথ্যেবাদী বলে।

কিন্তু আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা পরিশ্রম করে, ডি কে হোয়াং নামের কোরিয়ান ভদ্রলোকের গোপনে ধারনকৃত ভিডিও দেখে এবং সেটি থেকে কেটে কেটে, প্রতি সেকেন্ডের ভিডিও পর্যালোচনা করে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি যে ফারাজ আইয়াজ হোসেন নামে যে ছেলেটিকে নানা মিডিয়া (বিশেষ করে প্রথম আলো) যে হিরো বানাচ্ছে আসলে এই ফারাজ-ই হচ্ছে গুলশান ম্যাসাকারের জঙ্গীদের মধ্যে একজন জঙ্গী। আমরা আমাদের এই দাবীর পক্ষে যুক্তি দিব, প্রমাণ দেব এবং আমাদের এই দাবী আর যুক্তিগুলোকে আপনাদের সামনে যথাযথভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করব।

প্রথম আলোর মালিক লতিফুর রহমানের নাতি ফারাজ আইয়াজ হোসেনের সম্পর্কে যে হিরোসুলভ ও মহিমান্বিত সংবাদ আমরা পাচ্ছি সেটিকে পোর্টাল বাংলাদেশ কোনোভাবেই বিশ্বাস করেনি নানান কারনেই। আর সে না করার পেছনে কারন একটাই। সেই হোয়াং সাহেবের ভিডিও। হোয়াং সাহেবের ভিডিওতে একটি অংশে দেখা যাচ্ছে যে একটি জঙ্গী রেস্টুরেন্টের মূল ঢুকবার কাঁচের দরজার পাশে অবস্থান নিয়েছে এবং কয়েক সেকেন্ডের জন্য সে দরজা দিয়ে উঁকি মারছে। তার পিঠে রয়েছে পেছনে “উইলসন” নামের একটি ব্যাগ।(র‍্যাকস্যাক)

killer-8-132x300

আমরা এই জঙীটির উঁকি দেয়ার ভিডিও আপনাদের প্রথমে নরমাল মোশনে দেখাব। তারপর এই একই ভিডিও-ই আমরা একটু স্লো করে করেছি, তারপর আবার আরেকটু স্লো। তিন বারের এই একই ভিডিওতে আপনারা যাকে দেখবেন তার সাথে ফারাজ আইয়াজ হোসেনের ছবিটি এইবার একটু মেলান।কি চমকে গেলেন? ফারাজের মতই লম্বা, চুলকাটা আর স্পস্ট তারই প্রতিচ্ছবি।

জঙ্গিটির বা দিকের চুল একটু ছাটা আর ডান দিকের চুল কম। সাম্প্রতিক সময়ের চুলের এই স্টাইল-ই ছিলো এই উঁকি মারা জঙ্গীর। এইবার আপনি ফারাজের চুলের স্টাইল দেখুন। কি দেখলেন? মিলে গেছে, তাই তো? এইবার আসুন দেখি ফারাজের উচ্চতা কেমন। উঁকি মারা জঙ্গীটির উচ্চতা কমের পক্ষে ৫ ফুট ১০ ইঞ্চি থেকে ৬ ফুট। আমাদের অনুমান সেটাই বলে। এইবার আপনি ফারাজের উচ্চতা দেখুন নিচের ছবিতে। আন্দাজ করতে পারবেন আপনিও।

Jain-and-Hossain

ফারাজ আমেরিকার একটি ইউনিভার্সিটিতে পড়ছে এখন আর সে ইউনিভার্সিটিতে পড়ে তারই বন্ধু আবন্তি। তাদের আরেক বন্ধু ভারতীয় তারাশি জৈন। এই দুজনকে আসলে মরতেই হোতো কেননা ফারাজ যে জঙ্গী এটা তারা জেনেছিলো এই ভয়াবহ রাতে। একইভাবে ইশরাত আখন্দকে প্রাণ দিতে হয়েছিলো কারন ঘটনাটা ইশরাতও দেখে ফেলেছে। এরা মুক্তি পেলে প্রথম আলোর কর্ণধার নানা লতিফুরের বারোটা বাজবে, সেটা জঙ্গী ফারাজ ঠিকি জানতো। সুতরাং সে ঝুঁকি সে নেবে কেন?

আর বাকী বাংলাদেশী যারা মুক্তি পেয়েছে সেই দলের হোতা যে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির হাসনাত করিম এবং সেও যে জঙ্গীদের সহযোগী এই ব্যাপারে সামাজিক মাধ্যমে ইতিমধ্যেই লেখা হয়েছে। তাই এরা মুক্তি পেলে এই সত্য আর কেউ জানতে পারবে না, এই ব্যাপারে ফারাজ নিশ্চিত ছিলো।

আইন শৃংখলা বাহিনী ৬ জনকে হত্যা করেছে আর এক জঙ্গীকে ধরেছে এই কথা বার বার চাউর করা হলেও আমরা ৫ জনের লাশ দেখেছি আর তাদের সাথে আছে শেফের পোষাক পরা একজনের লাশ। এই শেফ লোকটি জঙ্গী নয় কিন্তু খামাখাই মিডিয়া তাকে জঙ্গী বলে প্রচার করেছে। এই শেফ লোকটির নাম সাইফুল। তাহলে ব্যাপারটা কি দাঁড়াচ্ছে? দাঁড়াচ্ছে যে ৬ জঙ্গী হত্যার কথা বল্লেও আসলে লাশ পেলাম ৫ জনের। কিন্তু প্রথম একটি ছবিতে ফারাজের লাশ দেখা গেলেও আরেকটি ছবিতে ফারাজের লাশ পুরোপুরি উধাও। আর প্রথম ছবিতে ফারাজের লাশ চিহ্নিত করা গেছে তার পায়ের সাদা কেডস দেখে। ভিডিওতে আপনারা দেখবেন যে ফারাজের পায়ে সাদা কেডস ছিলো।faraz

লতিফুর রহমানের মান সম্মান রক্ষার জন্য এখন কোনো না কোনো ভাবে এইটুকু ম্যানেজ হয়েছে যে ফারাজ এর নাম যাতে জঙ্গীর তালিকায় না আসে। আর প্রথম আলো তো প্রচার করে যাচ্ছেই যে ফারাজ কত মহান ছিলো।

এখানে আরেকটি ব্যাপার উল্লেখ্য যে ফারাজ সাম্প্রতিক সময়ে আমেরিকা থেকে এসেছে। ফারাজের পিঠে যে ব্যাগ চাপানো ছিলো সেটি দেখা যাচ্ছে “উইলসন” ব্র্যান্ডের যেটি একটি আমেরিকান ব্র্যান্ডের ব্যাগ। যদিও এই ব্যাগ হয়ত বাংলাদেশেও খুঁজলে পাওয়া যাবে এবং এটা হয়ত আসলে আমরা যুক্তির আদলে ফেলছিও না। তারপরেও শুধু একটু সূত্র দিয়ে রাখলাম যদি ভাবতে সুবিধা হয়।

wilson-102x300

তবে এত কিছুর পর খটকা এক যায়গাতেই। সেটা হচ্ছে মোট ৭ জঙ্গীর কথা বলা হলেও, লাশ পেলাম ৪ জনের। আর বাকী ৩টা গেলো কই এবং আই এস তাদের ৫ জঙ্গীর ছবি প্রকাশ করেছে। বাকী ২ জনের টা নয় কেন? এর কারন কি এটা হতে পারে যে বাকী দু’জন ধরা পড়েছে বলে তাদের নাম প্রকাশ থেকে বিরত রাখা হয়েছে? কিন্তু প্রকাশিতদের মধ্য থেকে কিন্তু ফারাজের ছবি নেই। তাহলে কি আই এস ভেবেছে ফারাজ ধরা পড়েছে? সে কারনেই কি ফারাজের ছবি প্রকাশ থেকে বিরত থাকা হয়েছে নাকি লতিফুরের পরিবার টাকা দিয়ে ম্যানেজ করেছে এসব? তাদের সাথে কি ভুল কমিউনিকেশন হয়েছে? কেননা তাদের প্রকাশিত ৫ জন জঙ্গীর মধ্যে ৪ জনের পরিচয় পেলেও একজনের ছবির সাথে কোনো লাশের ছবির-ই মিল নেই।

Source : http://portalbangladesh.com/bn/index.html/2016/07/17007

Advertisements

8 thoughts on “প্রথম আলোর লতিফুর রহমানের নাতি ফারাজ হিরো ন​য় , সন্দেহভাজন জঙ্গি !!

Add yours

  1. এখানে প্রশ্ন সে ধারালো অস্ত্রর আঘাতে মারা গেছে কিনা ?

    Like

  2. Stupidity just stupidity!!
    জঙ্গিরা আটকদের হাতে রাইফেলস তুলে দিয়েছিল এটা যারা বেচে ফিরেছে তারাই বলেছে ,,,,

    Don’t spread fake news

    Like

  3. জনগণকে ধাঁধাঁয় রাখতো আমাদের সরকারের বড় যোগ্যতা। এতে ব্রেইনের ব্যায়াম হয়, মানুষ সত্য থেকে দূরে সরে রহস্য উপন্যাস রচনা করে। তবে দু:খিত আপনাদের ভিডিওটি দেখে ওকে আমার কেন জানি ফারাজ মনে হলোনা ফারাজ কে আমার এই ছেলের চেয়ে স্লিম মনে হয়েছে। তবে অন্য যুক্তি গুলো উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না।

    Like

  4. Vai sada keds to video te dekha jacche Na. Confirm proof chara comment kora ki thik hocche? Ar Faraz to oidin e USA theke asche . Tar pokkhe ki eto taratari sob plan kora sombhob?

    Like

  5. This writing doesn’t prove anything. Rather, I think you people are trying to earn some money from his grandfather a very rich man. This is a common yellow journalism

    Like

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

Blog at WordPress.com.

Up ↑

%d bloggers like this: