হাওড়ের সন্তান দাবিদার রাষ্ট্রপতিও কেন ইউরেনিয়াম বিষ​য়ে ভারতের বিপক্ষে কথা বলছেন না ?

_92932472_20a6d0f7-8347-4a83-9f85-bfc900bc7f23
রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের কাছে খোলা চিঠি পাঠিয়েয়েছেন এক পরিবেশবাদী।পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থা সভাপতি কাসমির রেজাতার খোলা চিঠিতে রাষ্ট্রপতিকে এই দূর্যোগঘন মুহূর্তে হাওড়বাসীর পাশে দাড়ানোর জন্য ধন্যবাদ জানান।এই চিঠিতে তিনি রাষ্ট্রপতিকে হাওড়ের সন্তান উল্লেখ করে বলেন আপনিই হাওড়ের কান্না শুনতে পেরেছেন বলে তাদের পাশে দাড়িয়েছেন।এই খোলা চিটির মাধ্যমে তিনি রাষ্ট্রপতির কাছে ১৩ দফা দাবীসম্বলিত প্রস্তাব তুলে ধরেন।সিলেট টাইমস্ বিডির পাঠকদের সুবির্ধাত্ত্বে কাসমির রেজার খেলা চিটি হুবুহু তুলে ধরা হল-
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি জনাব এডভোকেট আব্দুল হামিদ

হাওরের রাজধানী খ্যাত সুনামগঞ্জে আপনাকে স্বাগত জানাই। আজ আপনি যখন হাওর পরিদর্শনে এলেন তখন আগাম বন্যায় সুনামগঞ্জের হাওরগুলোতে ৯০ ভাগ ফসল পানির নিচে তলিয়ে গেছে। হাওরজুড়ে বিরাজ করছে হাহাকার। এই পরিস্থিতিতে হাওরবাসীর সুখদুঃখের চিত্র স্বচক্ষে দেখতে এবং শুনতে সুনামগঞ্জে আসার জন্য এবং দু:খী মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানাই। আপনার এই সফর হাওরবাসীর মনে আশার সঞ্চার করেছে। মহান জাতীয় সংসদের ২৫ টি আসন নিয়ে গঠিত হাওরাঞ্চলে ২ কোটি মানুষের বাস। আপনি এই হাওর অঞ্চলের কৃতি সন্তান। প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রয়াত জিল্লুর রহমান, বর্ষিয়ান জননেতা আব্দুস সামাদ আজাদ, সাবেক স্পিকার আলহাজ্ব হুমায়ূন রশীদ চৌধুরী, সুরঞ্জিত সেন গুপ্তসহ অনেক প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতার জন্ম দিয়েছে এই হাওরের মাটি। তবু হাওরবাসীর দীর্ঘদিনের কিছু সমস্যার এখনো সমাধান হয়নি। এখনো থামেনি হাওরের কান্না। তাই আপনার কাছে বুক ভরা আশা নিয়ে নিম্নোক্ত প্রস্তাব করছি।

১. অবিলম্বে হাওরাঞ্চলের নদীগুলো খনন করে নদীর নাব্যতা বাড়ান এবং নদীতে পানির ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করুন।
২. হাওরের কিছু কিছু জায়গায় স্থায়ী ভাবে গার্ড ওয়াল দিয়ে বাঁধ নির্মাণ করুন।
৩. পানি উন্নয়ন বোর্ডের যেসব দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা এবং ঠিকাদার ও পি আই সি’র দুর্নীতির কারনে আজ হাওরের মানুষ সর্বস্ব হারিয়ে দিশেহারা হয়েছে তাদের বিচার নিশ্চিত করুন।
৪. হাওরের বাঁধ নির্মাণের জন্য ঠিকাদারী প্রথা বাতিল করে হাওরে যাদের জমি আছে তাদের অংশগ্রহণে বাঁধ নির্মাণ করুন।
৫. এ বছর হাওরের কৃষকদের ব্যাংক ঋণ, এনজিও ঋণ সহ সকল প্রকার ঋণ মওকুফ ও কৃষকদের জন্য সুদবিহীন ঋণের ব্যবস্থা করুন।
৬. হাওরের পরিবারগুলোতে অধিক হারে ১০টাকা কেজি দরে চাল সরবরাহ করুন।
৭. কৃষকদের স্বল্পমূল্যে ধান, বীজ ও সেচের জন্য ডিজেল সরবরাহ করুন।
৮. দ্রুত বর্ধনশীল ও পানি সহনীয় ও স্বল্প জীবন সম্পন্ন ধান আবিষ্কার ও ব্যবহার করার লক্ষ্যে গবেষণা নিশ্চিত করুন।
৯. দুই কোটি হাওরবাসীর জন্য আলাদা মন্ত্রণালয় গঠন করুন।
১০. দুর্যোগ আসবেই সেটাকে মাথায় রেখে দুর্যোগ পরিকল্পনা গ্রহণ ও শষ্যবীমা চালু করুন।
১১. হাওরের সম্পদ সুরক্ষা, গবেষণা ও উন্নয়নের লক্ষ্যে কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি হাওর ইন্সটিটিউট গঠন করুন।
১২. ২০১২ সালে বর্তমান সরকার গৃহীত হাওর উন্নয়ন মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করুন।
১৩. হাওরের সম্পদকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠা করে হাওরে বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করুন।

মহামান্য রাষ্ট্রপতি, হাওরের সমস্যা আপনার চেয়ে ভাল কে জানে? আপনার কাছে হাওরের দাবী তুলে ধরা ‘ মায়ের কাছে মামা বাড়ীর গল্প’ এর মত। আমরা আশা করি হাওরবাসীর দীর্ঘদিনের পুঞ্জিভূত সমস্যার সমাধান করে হাওরের কৃতি সন্তান হিসাবে আপনি চিরকাল হাওরবাসীর মনে বেঁচে থাকবেন। হাওরের দু:খী মানুষের মুখে ফুটাবেন হাসি। আপনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘজীবন কামনা করছি।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

Blog at WordPress.com.

Up ↑

%d bloggers like this: